যায়যায়বেলা
যায়যায়বেলা

বিজয়নগরে ১১০ হেক্টর জমিতে মিষ্টি কুমড়া চাষ

যায়যায়বেলা ডেক্স :: ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগরে বিভিন্ন অঞ্চলে এবার মিষ্টি কুমড়ার বাম্পার ফলন হয়েছে। ফলন ভালো হওয়ায় চাষিদের মুখে হাসি ফুটেছে। জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর থেকে বিনামূল্যে বীজ ও কৃষকদের প্রযুক্তিগত পরামর্শ সহায়তা দেয়ায় এবার ফলন ভালো হয়েছে।

জানা গেছে, বিজয়নগরের পত্তন ইউনিয়নের লক্ষীপুর, পত্তন শিবির, বড়পুকুর পাড়, দত্তখলা, গলখলা, লক্ষীমূড়া, মনিপুর গ্রামে ৯০ হেক্টর জমিসহ উপজেলার আরও বেশ কয়েকটি অঞ্চলে সর্বমোট ১১০ হেক্টর জমিতে সুইটি, মনিকা, ব্যাংকক, ত্রিপল 7 ও সোহাগীসহ নানা জাতের মিষ্টি কুমড়ার বীজ বপন করেছেন কৃষকরা।

কম খরচে অধিক লাভ হওয়ায় বিজয়নগরে দিন দিন বাড়ছে মিষ্টি কুমড়ার আবাদ। ফলন ভালো হওয়ায় এবার সুদিনের স্বপ্ন দেখছেন এ অঞ্চলের চাষিরা।নিদিষ্ট সময়ে বাজার জাত ও সঠিক মূল্য পেলে তারা আশার আলো দেখবে। আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে চলতি সপ্তাহ থেকে বাজারে মিষ্টি কুমড়া বিক্রি করতে পারবে কৃষকরা।

উপজেলার পত্তন ইউনিয়নের লক্ষীপুরের গ্রামের কৃষক মশু ভূইয়া জানান, ১ বিঘা জমিতে মিষ্টি কুমড়া চাষে সব মিলে খরচ হয় ১১-১৩ হাজার টাকা। এ বছর ২০ বিঘা জমিতে মিস্টি কুমড়া বীজ রোপণ করেছি। ভালো ফলন হলে একেক বিঘা জমির উৎপাদিত মিষ্টি কুমড়া বিক্রি হবে ২৫-৩০ হাজার টাকা। কুমড়ার বীজ জমিতে বপনের ৮৫ থেকে ৯০ দিনের মধ্যেই কুমড়া বিক্রি করা সম্ভব বলে জানান চাষিরা। বিজয়নগর উপজেলা কৃষি অফিসার শাব্বির আহমেদ জানান, উপজেলায় এবার ১১০ হেক্টর জমিতে মিষ্টি কুমড়ার চাষ হয়েছে। কৃষকদের মাঝে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের মাধ্যমে হাইব্রিড মিষ্টি কুমড়ার বীজ বিতরণ করা হয়েছে। মাঠ পর্যায়েও কৃষকদের প্রযুক্তিগত পরামর্শ সহায়তা দেয়া হচ্ছে। একেকটি কুমড়া ৩৫-৪০ টাকা পাইকারি দরে বিক্রি করতে পারবে চাষিরা৷

তিনি আরও জানান, ফলন ভাল হয়েছে কৃষকরা লাভবান হবে। তবে শেখ হাসিনা সড়কের কাজ চলছে যার কারনে পাইকাররা তেমন আসছে না।

যায়যায়বেলা