যায়যায়বেলা
যায়যায়বেলা

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মহাসড়কের পাশ থেকে ট্রাক চালকের মরদেহ উদ্ধার

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি

আশুগঞ্জে মহাসড়কের পাশ থেকে জাহিদুল ইসলাম জাহিদ (৩৫) নামে এক ট্রাক-চালকের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।রোববার (২৮ মে) দুপুরে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের সৈয়দ নজরুল ইসলাম সেতুর টোল প্লাজা ও আশুগঞ্জ রেলওয়ে স্টেশনের মাঝামাঝি জায়গা থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়।জাহিদুল ইসলাম জাহিদ চুয়াডাঙ্গা জেলার সদর উপজেলার মাছের দাইর গ্রামের বাদল শেখের ছেলে।পুলিশ ও ট্রাকের হেল্পার রোমেল জানান, শনিবার দিবাগত রাত আনুমানিক ১২টার দিকে ট্রাক চালক জাহিদুল ইসলাম জাহিদ ঢাকার নারায়নগঞ্জ থেকে সিরামিকের মাটি লোড করে সিলেটের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয়ে রাত আনুমানিক ২টার দিকে আশুগঞ্জ রেল গেইটে পৌছে ট্রাক থামিয়ে কোথায় যেন চলে যান। এসময় হেল্পার রোমেল ঘুমিয়েছিল। রাত তিনটায় রোমেলের ঘুম ভাঙ্গলে তিনি দেখতে পান রাস্তায় গাড়ী দাড়ানো এবং তার পাশে চালক নেই, দরজা বন্ধ রয়েছে। তখন রোমেল অনেক চেষ্টা করে গাড়ীর দরজা খুলে বের হয়ে অনেক খোজাখুজি করে চালককে না পেয়ে আশুগঞ্জ থানায় যায়। এসময় পুলিশ তাকে পরে যোগাযোগ করতে বলে বলে রোমেল জানান। এমতাবস্থায় রোমেল রাত থেকে দুপুর পর্যন্ত আশেপাশের দোকানপার্টে চালককে খোঁজ করাসহ অপেক্ষা করতে থাকে। পরবর্তীতে রোববার দুপুর ১২টার সময় স্থানীয় লোকজনের মাধ্যমে আশুগঞ্জ থানা পুলিশ খবর পায় যে, আশুগঞ্জ রেলস্টেশন সংলগ্ন নাটাল মাঠে একটি লাশ পড়ে রয়েছে। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে রোমেলকে ঢেকে নিলে তিনি নিহত চালকের মরদেহ শনাক্ত করেন।আশুগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ আজাদ রহমান জানান, পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে মরদেহ শনাক্তের পর সুরতহাল রিপোর্ট তৈরি করে এবং মরদেহটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালে প্রেরণ করে।ওসি আরও জানান, নিহতের মরদেহে কোন আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়নি। ময়নাতদন্ত রিপোর্ট না পাওয়া পর্যন্ত হত্যা না আত্মহত্যা কিছুই নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না। ময়নাতদন্ত রিপোর্ট পাবার পর আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে ওসি জানান।

যায়যায়বেলা