যায়যায়বেলা
যায়যায়বেলা

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বিভিন্ন নির্বাচনী সভায় উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী এমপি

আগামী ৭ জানুয়ারি অনুষ্ঠিতব্য দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ব্যাপক গণসংযোগ ও পথসভা করছেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৩-(সদর-বিজয়নগর) আসনে আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি র.আ.ম. উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী এমপি।

আজ মঙ্গলবার দিনব্যাপী সদর উপজেলার সুহিলপুর ইউনিয়নের ঘাটুরা ও সুহিলপুর, বুধল ইউনিয়নের নন্দনপুর এবং বুধল গ্রামে গণসংযোগ ও নির্বাচনী সভা করেন।

সকাল ১০টায় সুহিলপুর বাজারে ও দুপুর ১২টার সময় বুধল বাজার সংলগ্ন বুধল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে নির্বাচনী সভা করেন।

এ সব সভায় র.আ.ম. উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী এমপি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার শাসনামলে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ব্যাপক উন্নয়ন কর্মকান্ড বাস্তবায়ন হয়েছে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার প্রতিটি সেক্টরে ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে। তিনি বলেন, নির্বাচন আসলেই কিছু লোক আপনাদের কাছে আসেন। তারা আপনাদেরকে মিথ্যা প্রতিশ্রুতি দেন। তাদের কথায় কান দিবেন না। তাদেরকে ভোট দিলেও তাদেরকে কাছে পাবেন না।

তিনি বলেন, আমি সব সময় আপনাদের পাশে থাকি। আমি বিশ্বাস করি আমাদের দোয়ায় আমি নির্বাচিত হবো। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একটি স্মার্ট বাংলাদেশ গঠনে কাজ করছেন। আমিও স্মার্ট ব্রাহ্মণবাড়িয়া বির্নিমানে কাজ করছি। তিনি তাঁর নির্বাচনী এলাকার বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকান্ডের ফিরিস্তি তুলে ধরে বলেন, আমি এমপি নির্বাচিত হই বা না হই, আমি সব সময় আপনাদের পাশে থাকবো।

তিনি উন্নয়ন অগ্রগতির ধারাবাহিকতা রক্ষায় আগামী ৭ জানুয়ারি অনুষ্ঠিতব্য দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নৌকা মার্কায় ভোট দেয়ার আহবান জানান।

এ সময় জেলা পরিষদের সদস্য মোঃ বাবুল মিয়া, সদর উপজেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট লোকমান হোসেন, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল কালাম ভ‚ইয়া, সাধারণ সম্পাদক এম.এ.এইচ মাহবুব আলম, বুধল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আতিকুর রহমান, সাবেক চেয়ারম্যান আবদুল হকসহ জেলা আওয়ামীলীগ ও অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৩-(সদর-বিজয়নগর) আসনে র.আ.ম. উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী এমপির সাথে প্রতিদ্ব›িদ্বতা করছেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলা পরিষদের পদত্যাগী চেয়ারম্যান ফিরোজুর রহমান ওলিও। গত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ফিরোজুর রহমান ওলিও আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিত হন।

সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক লাইভে এসে ফিরোজুর রহমান ওলিও মদকে মেডিসিন ও তার মদের ব্যবসাকে হালাল ব্যবসা আখ্যায়িত করে ব্যাপক সমালোচিত হন।

রাজধানী ঢাকায় ফিরোজুর রহমান ওলিওর গোল্ডেন ড্রাগন, এরাম, পিকক এবং ওলিও ইন্টারন্যাশনাল সহ বেশ কয়েকটি মদের বার রয়েছে।

যায়যায়বেলা